ভাঙ্গা-যশোর-বেনাপোল মহাসড়ক চার লেন হলে দুরত্ব কমবে ৮৬ কি: মি:

দুরত্ব কমবে ৮৬ কি: মি:

রিপন বিশ্বাস,জেলা প্রতিনিধি নড়াইলঃ স্বপ্নের পদ্মা সেতু চালুর পর রাজধানী থেকে বেনাপোল স্থলবন্দর হয়ে সড়ক পথে কলকাতা যাওয়ার পথ অনেকটা সহজ হয়েছে ।

তবে ভাঙ্গা – যশোর – বেনাপোল মহাসড়ক চার লেনে উন্নীত না হওয়ায় খুলনা ঘুরে ৮৬ কিলোমিটার পথ বেশি পাড়ি দিয়ে রাজধানী থেকে বেনাপোল বন্দর হয়ে কলকাতা যেতে হচ্ছে বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষকে । এতে সময় ও অর্থ দুটিই ব্যয় হচ্ছে ।

আরও পড়ুন>>>যশোরে অস্ত্র গুলিসহ তিন জন আটক

ভুক্তভোগীরা বলছেন , মহাসড়কটি চার লেনে উন্নীত করা হলে রাজধানী ঢাকার সঙ্গে বেনাপোল স্থলবন্দরের দূরত্ব কমবে ৮৬ কিলোমিটার ।

সড়ক ও জনপথ ( সওজ ) অধিদপ্তর সূত্র জানা গেছে , ভাঙ্গা – যশোর – বেনাপোল ১৩০ কিলোমিটার মহাসড়ক চার লেনে উন্নীত করার জন্য ১১ হাজার কোটি টাকার প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে । তবে অর্থায়নের অভাবে এ প্রকল্প কবে নাগাদ শুরু হবে তা দায়িত্বশীল কেউ জানাতে পারেননি ।

ভারত সরকারের সঙ্গে এ নিয়ে আলোচনা চলছে বলে সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানিয়েছে । নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সওজের এক কর্মকর্তা বলেন , ভারত সরকার এ প্রকল্পে ১০০ মিলিয়ন ডলার দেবে বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছে । আমরা চেয়েছি , ১ হাজার মিলিয়ন । অর্থের বিষয়টি নিশ্চিত হলে দ্রুত এ কাজ শুরু হবে ।

ঢাকা থেকে পদ্মা সেতু হয়ে বেনাপোলের দূরত্ব ( ভায়া নড়াইল ) মাত্র ২০০ কিলোমিটার । যার মধ্যে ফরিদপুরের ভাঙ্গা থেকে নড়াইল হয়ে বেনাপোল স্থলবন্দর পর্যন্ত সড়কটির দৈর্ঘ্য ১৩০ কিলোমিটার । ব্যস্ততম এ সড়কের প্রশস্ত মাত্র ১৮-২৪ ফুট । এ সড়ক দিয়ে ঢাকা বিভাগের ফরিদপুরের একাংশ , গোপালগঞ্জ এবং খুলনা বিভাগের বেনাপোল স্থলবন্দরসহ মোট ১১ জেলার যানবাহন চলাচল করে ।

পরিবহন চালক টিপু সুলতান জানান , বেনাপোল থেকে খুলনা হয়ে ঢাকার দূরত্ব ২৯০ কিলোমিটার । ভাঙ্গা যশোর – বেনাপোল জাতীয় মহাসড়ককে চার লেনে উন্নীতি করলে তখন এ সড়ক দিয়ে বেনাপোল থেকে ঢাকার দূরত্ব হবে মাত্র ২০০ কিলোমিটার । সড়কটি ব্যবহার করতে পারলে ৮৬ কিলোমিটার পথ কমে যাবে ।

আরেক চালক রিপন মোল্লা বলেন , বর্তমানে ভাঙ্গা থেকে বেনাপোল পর্যন্ত পুরনো এ সড়ক মাত্র ১৮-২৪ ফুট প্রশস্ত । এ সড়কে ঝুঁকিপূর্ণ কয়েকটি ১০-১৪ ফুট প্রশস্ত সেতু রয়েছে । ঝুঁকিপূর্ণ এসব সেতু দিয়ে পাঁচ টনের বেশি ওজনের যানবাহন চলাচল সরকারিভাবেই নিষেধ । এত পুরনো ও কম প্রশস্ত সড়কে দুর্ঘটনা বাড়তে পারে – সে আশঙ্কায় তারা সড়কটি ব্যবহার না করে খুলনা ঘুরে বেনাপোল থেকে ঢাকা যাতায়াত করেন ।

প্রকল্প সূত্রে জানা যায় , ফরিদপুরের ভাঙ্গা থেকে বেনাপোল পর্যন্ত ১৩০ কিলোমিটার ভাঙ্গা – যশোর বেনাপোল জাতীয় মহাসড়ককে চার লেনে উন্নীতকরণে মোট ১১ হাজার কোটি টাকার ডিপিপি প্রণয়নের কাজ শেষ হয়েছে । মহাসড়কের নকশার কাজ শেষ হয়েছে অনেক আগেই । এর মধ্যে পাঁচটি ফ্লাইওভার রয়েছে এবং নড়াইল ও যশোর অংশে রয়েছে দুটি বাইপাস । সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে , এ প্রকল্পের বাস্তবায়ন হলে বেনাপোল – ঢাকার দূরত্ব ৮৬ কিলোমিটার কমবে । তখন রাজধানী ঢাকার সঙ্গে বেনাপোল স্থলবন্দরের দূরত্ব হবে ২০০ কিলোমিটার এবং ভারতের কলকাতার দূরত্ব হবে মাত্র ২৮৪ কিলোমিটার । সড়কটি ব্যবহার করতে পারলে পরিবহনযোগে রাজধানী থেকে ৩ – সাড়ে ৩ ঘণ্টার মধ্যে পৌঁছানো যাবে । বেনাপোল আর কলকাতা যেতে সময় লাগতে পারে মাত্র ৪-৫ ঘণ্টা । একইভাবে ঢাকার সঙ্গে যশোরের শিল্প ও বাণিজ্যিক শহর নওয়াপাড়া এবং মোংলা বন্দর , সাতক্ষীরাসহ দক্ষিণ – পশ্চিমাঞ্চলের অন্য জেলার দূরত্বও কমে যাবে।

সওজ নড়াইলের নির্বাহী প্রকৌশলী মো . আশরাফুজ্জামান বলেন , পদ্মা সেতু চালু হওয়ার পর ভাঙ্গা – যশোর বেনাপোল জাতীয় মহাসড়ককে চার লেনে উন্নীতকরণ জরুরি হয়ে পড়েছে । প্রকল্পের কাজ চলমান । বিষয়টি সরকার অনেক গুরুত্বের সঙ্গে দেখছে । পদ্মা সেতু চালু হওয়ার পর থেকেই ভাঙ্গা – যশোর – বেনাপোল সড়কে গাড়ির চাপ অনেক বেড়ে গেছে । যানবাহনের আপাতত চাপ সামলাতে কালনা থেকে যশোর পর্যন্ত বর্তমান সড়কটি আরো ছয় ফুট প্রশস্ত করা হবে । দেড় বছরের মধ্যে এ সড়কের কাজ শেষ হবে । ভাঙ্গা – যশোর – বেনাপোল জাতীয় মহাসড়ককে চার লেনে উন্নীতকরণের কাজ শুরু হলে পাঁচ বছরের মধ্যে প্রকল্পের কাজ শেষ হবে । চার লেনের মহাসড়কটি নির্মাণ হলে বেনাপোলের গাড়িগুলোর চালকদের খুলনা ঘুরে যেতে হবে না । বেনাপোলের সঙ্গে ঢাকার দূরত্ব অনেক কমে যাবে । তখন পদ্মা সেতুর পুরোপুরি সুফল পাবে এলাকাবাসী ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here