পাপুলের বিষয়ে এখনও ‘জানে না’ সংসদ

318
পাপুলের বিষয়ে

ডেস্ক নিউজ:  সংসদ অধিবেশনে ২৬ কার্যদিবস অনুপস্থিত লক্ষ্মীপুর-২ (রায়পুর) আসনের স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য কাজী শহিদ ইসলাম পাপুলের বিষয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে এখনও কিছু জানে না সংসদ।

কোনো সংসদ সদস্য গ্রেপ্তার, আটক বা কারাদণ্ডে দণ্ডিত হলে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে সংসদের কার্যপ্রণালি বিধি অনুযায়ী তা স্পিকারকে জানাতে হয়।

তবে পাপুলের বিষয়ে সরকারের কোনো কর্তৃপক্ষ স্পিকারকে এখনও কিছুই জানায়নি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে স্পিকার শিরীন শিারমিন চৌধুরী বলেন, “কার্যপ্রণালি বিধি অনুযায়ী আমার কাছে এ বিষয়ে কোনো তথ্য আসেনি।”

সংসদ সচিবালয়ের একজন কর্মকর্তা বলেন, সাংসদ পাপুল যদি কুয়েতের আদালতে দণ্ডিত হন, কিংবা তাকে বাংলাদেশে ফেরত আনা হয়, সেক্ষেত্রে তার আটক বা গ্রেপ্তারের বিষয়টি স্পিকারকে জানাতে হবে। সে অনুযায়ী পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

তবে পাপুলের সদস্য পদ নিয়ে কোনো বিতর্ক দেখা দিলে নির্বাচন কমিশনের সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত বলে বিবেচিত হবে।

জনশক্তি রপ্তানিকারক পাপুলকে গত ৬ জুন কুয়েতের মুশরিফ এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করে সে দেশের পুলিশ।

মানবপাচার, অর্থপাচার ও ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানের কর্মীদের শোষণের অভিযোগে ইতোমধ্যে সেখানে তার বিচার শুরু হয়েছে।

সাধারণ শ্রমিক হিসাবে কুয়েত গিয়ে বিশাল সাম্রাজ্য গড়া পাপুল ২০১৮ সালে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন লক্ষ্মীপুরের আসনটিতে।

ওই নির্বাচনে ওই আসনটি আওয়ামী লীগ জাতীয় পার্টিকে ছেড়ে দিয়েছিল। কিন্তু জাতীয় পার্টির প্রার্থী শেষ মুহূর্তে ভোট থেকে সরে দাঁড়ালে ‘বিএনপি ঠেকাতে’ স্থানীয় আওয়ামী লীগ পাপুলের পক্ষে কাজ করে বলে দলটির নেতাদের ভাষ্য।

পাপুল নিজে এমপি হওয়ার পর স্বতন্ত্র সংসদ সদস্যদের কোটায় পাওয়া সংরক্ষিত একটি আসনে তার স্ত্রী সেলিনাকে এমপি করে আনেন।

প্রবাসী উদ্যোক্তাদের প্রতিষ্ঠিত এনআরবি কমার্শিয়াল ব্যাংকের ভাইস চেয়ারম্যান ছিলেন পাপুল, যেখানে তার বড় অঙ্কের শেয়ার রয়েছে।

পাপুলের মালিকানাধীন মারাফি কুয়েতিয়া গ্রুপে প্রায় ১৫ থেকে ২০ হাজার প্রবাসী বাংলাদেশি কাজ করেন বলে কুয়েতে বাংলাদেশি কমিউনিটির ধারণা।

এই সংসদ সদস্য কুয়েতে গ্রেপ্তার হওয়ার পর তার বিরুদ্ধে অর্থপাচার ও অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে তদন্তে নামে দুদক।

অনুসন্ধানে পাপুলের শ্যালিকা জেসমিন প্রধানের ব্যাংক হিসাবে ১৪৮ কোটি টাকার ‘অবৈধ লেনদেন ও পাচারের তথ্য’ পাওয়ায় পাপুল, সেলিনা, তাদের মেয়ে ওয়াফা ইসলাম এবং জেসমিনের বিরুদ্ধে ইতোমধ্যে মামলা হয়েছে।

পাপুলের স্ত্রী, মেয়ে ও শ্যালিকার দেশত্যাগেও নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। পাশাপাশি পাপুল দেশে ফিরলে আর যেন বিদেশে যেতে না পারেন, সে বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ করে পুলিশের বিশেষ শাখায় (এসবি) চিঠি দেওয়া হয় দুদকের পক্ষ থেকে।

সংবিধানের ৬৭ (খ) অনুচ্ছেদ অনুসারে স্পিকারের অনুমতি ছাড়া কোনো সংসদ সদস্য টানা ৯০ কার্যদিবস সংসদে অনুপস্থিত থাকলে তার সদস্যপদ শূন্য হবে।

যেহেতু এখন পর্যন্ত ২৬ কার্যদিবস অনুপস্থিত রয়েছেন পাপুল, ফলে ওই ৯০ কার্যদিবসের নিয়মে পড়ার আগে তিনি আরও অনেক সময় পাচ্ছেন।

বাংলাদেশের সংবিধানের ৬৬(২) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী, নৈতিক স্খলনজনিত কোনো ফৌজদারি অপরাধে দুই বছরের কারাদণ্ডে দণ্ডিত হলে মুক্তি পাওয়ার পর পাঁচ বছর পর্যন্ত তিনি আর সংসদ সদস্য হওয়ার যোগ্য বিবেচিত হন না।

কুয়েতে পাপুলের বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ আনা হয়েছে, তা প্রমাণিত হলে সে দেশের আইনে তার পাঁচ থেকে ১৫ বছরের কারাদণ্ড এবং জরিমানা হতে পারে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here