শীতে অতিরিক্ত শুষ্ক ত্বকের যত্ন

411
শীতে অতিরিক্ত শুষ্ক ত্বকের যত্ন
শীতে অতিরিক্ত শুষ্ক ত্বকের যত্ন

ত্বক উপযোগী প্রসাধনী ব্যবহারের পাশাপাশি পরিচর্যায় দিতে হবে বিশেষ নজর। শীতের সঙ্গে ত্বক আর্দ্রতা হারায়। যাদের ত্বক বেশি শুষ্ক তারা পড়েন বেশি ঝামেলায়।

রূপচর্চা-বিষয়ক একটি ওয়েবসাইটে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে শীতে অরিতিক্ত শুষ্ক ত্বকের যত্ন সম্পর্কে জানানো হল।

মৃদু ফেইস ওয়াশ ও সাবান ব্যবহার: শক্তিশালী ফেইসওয়াশ ও সাবান ত্বকের প্রাকৃতিক তেল শুষে নেয়। এতে ত্বক বেশি শুষ্ক হয়ে পড়ে। তাও ত্বকের আর্দ্রতা বজায় রাখতে মৃদু ‘বডি’ ও ‘ফেইস ওয়াশ’ ব্যবহার করুন।

ত্বক পরিষ্কার করার পরপর ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার: ত্বক পরিষ্কার করা বা গোসলের ঠিক পরেই ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করুন। ত্বকের আর্দ্রতা রক্ষায় গ্লিসারিন ও শিয়া বাটার যুক্ত ক্রিম বা লোশন ব্যবহার করা ভালো।

সিরাম ব্যবহার: মুখের ত্বক খুব বেশি শুষ্ক হলে, আর্দ্রতা রক্ষাকারী সিরাম ব্যবহার করুন। এরপর ময়েশ্চারাইজার করুন। এতে ত্বক আর্দ্র ও মসৃণ হবে। ভালো ফলাফলের জন্য সপ্তাহে দুবার ব্যবহার করতে পারেন।

এক্সফলিয়েট বাদ দেওয়া যাবে না: সপ্তাহে অন্তত একবার ত্বক এক্সফলিয়েট করতে ভুলবেন না। ত্বকের পক্ষে কোমল ও আর্দ্রতা রক্ষা করে এমন স্ক্রাব ব্যবহার করুন। এটা ত্বকের মৃত কোষ দূর করে এবং সহজেই ত্বকে শোষিত হয়।

রাতে ভারী ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার: মুখ থেকে শুরু করে সারা শরীর যদি শুষ্ক ও খসখসে মনে হয় তাহলে রাতে অবশ্যই ভারী ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করুন। ‘নন-কমেডোজেনিক’ উপাদান সমৃদ্ধ যেমন- হ্যালোরোনিক ও জলপাইয়ের তেল ব্যবহার করতে পারেন। এটা ত্বক চিটচিটে না করে আর্দ্রতা বজায় রাখতে সহায়তা করে।

গরম পানিতে গোসল বাদ দেওয়া: বেশি নয় বরং হালকা বা কুসুম গরম পানি দিয়ে গোসল করার চেষ্টা করুন। নিয়মিত গরম পানিতে গোসল ত্বককে শুষ্ক এমনকি খসখসেও করে ফেলে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here